Friday, July 12, 2024
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img
Homeবাংলাদেশপ্রেমের টানে ইন্দোনেশিয়া থেকে রাসেলের বাড়িতে ফানিয়া

প্রেমের টানে ইন্দোনেশিয়া থেকে রাসেলের বাড়িতে ফানিয়া

ফেসবুক থেকে বন্ধুত্ব। তারপর প্রেম। আর সেই প্রেমের টানে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ছুটে এসেছেন এক ইন্দোনেশিয়ান তরুণী। তার নাম ফানিয়া আই অপ্রেনিয়া। সোমবার সন্ধ্যায় ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি ফ্লাইটে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন তিনি। সেখান থেকে রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামের প্রেমিক রাসেল আহমেদের বাড়িতে আসেন।

এ ঘটনাটি এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। আশপাশের গ্রামের মানুষ ভিড় করছেন ওই বিদেশিনীকে দেখার জন্য। মঙ্গলবার সকালে রায়পুরের রাখালিয়া গ্রামে রাসেল আহমেদের বাড়ি গিয়ে দেখা যায় রাসেলের পরিবারের সঙ্গে গল্প করছেন ফানিয়া। ফানিয়া ইন্দোনেশিয়ার দিপক এলাকার পাউদি হেলমি ও ফিসুনয়াদি ইসনা ওয়াপি দম্পতির মেয়ে। তিনি সেখানে একটি কল সেন্টারে চাকরি করেন। রাসেল আহমেদ রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামের মো. মনির হোসেনের ছেলে। পেশায় তিনি একজন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী। জানা গেছে, প্রায় চার বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে ফানিয়ার সঙ্গে রাসেলের পরিচয়, বন্ধুত্ব ও ঘনিষ্ঠতা। এক পর্যায়ে তা অদেখার দূরত্ব ঘুচিয়ে প্রেমের সম্পর্কে গড়ায়।

রাসেল জানান, তাদের চার বছরের প্রেমের সম্পর্ক। ফানিয়া বিয়ের জন্য সুদূর ইন্দোনেশিয়া থেকে বাংলাদেশে এসেছেন। স্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের ইচ্ছা তার, তবে আপাতত নয়। দুই মাসের ছুটি নিয়ে এসেছেন ফানিয়া। ছুটি শেষে চলে যেতে হবে আবার ইন্দোনেশিয়ায়। তবে এক সময় ফানিয়াকে নিয়ে স্থায়ীভাবে বাংলাদেশে বসবাস করতে চান তিনি। ফানিয়াও বাংলাদেশে থাকার ব্যাপারে আগ্রহী।

ফানিয়া জানান, রাসেলের প্রতি গভীর ভালোবাসার টানে বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি তার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে চান। বিষয়টি তিনি তার মা-বাবাকে জানিয়েছেন। তিনি এ দেশের মানুষের আতিথেয়তা ও ভালোবাসায় মুগ্ধ। ফানিয়া বাংলা জানেন। তবে বলতে পারেন না। বাংলা শেখার চেষ্টা করছেন বলে জানান।

রাসেল আহমেদের মা বিলকিস বেগম জানান, এখানে আসার পর থেকে পরিবারের সবার সঙ্গে খুব মিশে গেছে ফানিয়া। সবাইকে আপন করে নিয়েছেন।ফেসবুকে পরিচয় থেকে বন্ধুত্ব ও প্রেম। আর সেই প্রেমের টানে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ছুটে এসেছেন এক ইন্দোনেশিয়ান তরুণী। তার নাম ফানিয়া আই অপ্রেনিয়া।

সোমবার সন্ধ্যায় ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি ফ্লাইটে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন তিনি। সেখান থেকে রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামের প্রেমিক রাসেল আহমেদের বাড়িতে আসেন।

এ ঘটনাটি এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। আশপাশের গ্রামের মানুষ ভিড় করছেন ওই বিদেশিনীকে দেখার জন্য।

মঙ্গলবার সকালে রায়পুরের রাখালিয়া গ্রামে রাসেল আহমেদের বাড়ি গিয়ে দেখা যায় রাসেলের পরিবারের সঙ্গে গল্প করছেন ফানিয়া।

ফানিয়া ইন্দোনেশিয়ার দিপক এলাকার পাউদি হেলমি ও ফিসুনয়াদি ইসনা ওয়াপি দম্পতির মেয়ে। তিনি সেখানে একটি কল সেন্টারে চাকরি করেন। রাসেল আহমেদ রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামের মো. মনির হোসেনের ছেলে। পেশায় তিনি একজন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী।

জানা গেছে, প্রায় চার বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে ফানিয়ার সঙ্গে রাসেলের পরিচয়, বন্ধুত্ব ও ঘনিষ্ঠতা। এক পর্যায়ে তা অদেখার দূরত্ব ঘুচিয়ে প্রেমের সম্পর্কে গড়ায়।

রাসেল জানান, তাদের চার বছরের প্রেমের সম্পর্ক। ফানিয়া বিয়ের জন্য সুদূর ইন্দোনেশিয়া থেকে বাংলাদেশে এসেছেন। স্ত্রীকে নিয়ে বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের ইচ্ছা তার, তবে আপাতত নয়। দুই মাসের ছুটি নিয়ে এসেছেন ফানিয়া। ছুটি শেষে চলে যেতে হবে আবার ইন্দোনেশিয়ায়। তবে এক সময় ফানিয়াকে নিয়ে স্থায়ীভাবে বাংলাদেশে বসবাস করতে চান তিনি। ফানিয়াও বাংলাদেশে থাকার ব্যাপারে আগ্রহী।

ফানিয়া জানান, রাসেলের প্রতি গভীর ভালোবাসার টানে বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি তার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে চান। বিষয়টি তিনি তার মা-বাবাকে জানিয়েছেন। তিনি এ দেশের মানুষের আতিথেয়তা ও ভালোবাসায় মুগ্ধ। ফানিয়া বাংলা জানেন। তবে বলতে পারেন না। বাংলা শেখার চেষ্টা করছেন বলে জানান।

রাসেল আহমেদের মা বিলকিস বেগম জানান, এখানে আসার পর থেকে পরিবারের সবার সঙ্গে খুব মিশে গেছে ফানিয়া। সবাইকে আপন করে নিয়েছেন।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments